আন্তর্জাতিক নারী দিবস -২০১৫

11137072_1390574831266159_1153812268_n

(llbangla.org)

আমাদের সমাজে যা কিছু আছে তার অর্ধের করিয়াছে নারী আর অর্ধেক করিয়ছে নারী। এই কথাটি আমাদের জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম আরো বহু আগেই বলে গেছেন। কিন্তু এই সমাজ নারীদের উপর নানা ভাবে দুঃখ যন্ত্রনা চাপিয়ে দিয়েছে যুগে যুগে কালে কালে। যারা এর প্রতিবাদ করেছেন তারা ও নিগৃহিত হয়েছেন। তবে এই লড়াই এখনো চলছে দুনিয়ার সকল জায়গায়। তবে এখনো নারী সমাজ তাদের কাঙ্ক্ষিত অবস্থান পায়নি। সমাজ পরিবর্তনের লড়াইয়ে নারীরা ও আমাদের সাথে লড়াইয়ে যুক্ত আছেন। অন্যান্য শক্তির তুলনায় আমাদের জন্য এটা একটা বার্তি প্রাপ্তি। প্রতিক্রিয়াশীল, ধর্মীয় ও গোড়ামী পন্থীরা সর্বদাই নারীদেরকে নিচু ভেবে এসেছে। জেন্ডার ইস্যুতে আমরা বলছি, ‘না !’ কেননা আমরা তো আসলে একটি বিপ্লবী বিজ্ঞানের জন্য কাজ করছি। আমাদের শক্তি শালী আলোকিত সাম্যবাদের জন্য সংগ্রাম করছি। আমরা কোন প্রকার লিংগবাদি নই, আমরা কাউকেই ঘৃনা করি না । আমাদের ভালোবাসা সকলের প্রতি। আমরা চীনের বিপ্লবীদের মত বলছি। ‘আকাশের অর্ধেক নারী সমাজ দখল করে আছেন’! নারীরা নরদের পার্শ্বে থেকে লড়াই করবেন। নারী নরকে পরিচালনা করতে পারেন। নারী পুরুষের চেয়ে শক্তি সম্পন্ন হতে পারেন। এটা তাদের ভবিষ্যতের জন্য জরুরী। তাদের অধিকার আছে, তাদের অধিকারের জন্য তারা লড়াই করবেন এটা তাদের নৈতিক দায়িত্ব ও বটে। আমরা সকলেই শিশুদের জন্য লড়াই করছি। আমাদের ভবিষ্যৎ আমারা মিলিত ভাবেই গড়তে চাই। আমাদের সুন্দর ভবিষ্যৎ আলোকিত সাম্যবাদের নিহিত। বিশ্ব গন সংগ্রামে নিহিত। ওরা তো আমাদেরই লোক। আমরাও তাদের জন্য”।- পি এফ

নারীরা ও আজ সাম্রাজ্যবাদের দূষর চরম পন্থীদের দ্বারা আক্রান্ত। নারীদের উপর বর্বর আক্রমন আজ দুনিয়ার নানা জায়গায় পরিচালিত হচ্ছে। বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্থান সহ নানা মুসলিম দেশে ও সমাজে নারী আজ একের পর এক বিপদে সম্মোখিন হচ্ছেন। উন্মাদিয় কায়দায় আজ নারীদের প্রগতিকে তারা আটকে দিতে চায়। তারা নানা জায়গায় কলহ সৃজন করে সমাজের বন্দনকে দূর্বল করে দিতে চায়। তারা আধা সামন্তবাদি সংস্কৃতির চর্চা করতে ও অধুনিক ধরনের প্রক্রিয়ায় নারীদের সর্বনাশ করে চায়। নারীদেরকে গন হারে শীল্প দাসে পরিণত করতে চাইছে দানব চক্র। আই এস গন হত্যা চালিয়ে সকল মানুষ মেরে উৎস করছে। এরা নারী পুরুষদেরকে যৌন দাসে পরিণত করতে চায়। এরা চরম পন্থী ও সাম্রাজ্যবাদের সহচর। আশিক্ষিত রেখে, কোন কাজ করতে না দিয়ে কেবল যৌন কাজে নিয়িজিত করতে চায়। গৃহদাসী হিসাবে নারীদেরকে ব্যবহার করতে উরা বদ্বপরিকর। ল্যাতিন আমেরিকায় সাম্রাজবাদের পর্যটন যৌন দাসিদের মত এরা এখন এশিয়া, এবং পূর্ব ইউরূপে যৌনদাসীদের আবাস ভূমি তৈরী করতে চায়। তৃতীয় বিশ্বের নারীদেরকে এমন এক পরিবেশে রাখা হয়ছে যারা অনেকটা দাসের জীবন যাপন করতে বাধ্য হচ্ছে। নারীরা আজ রিফিউজিতে পরিণত হচ্ছে, খাদ্যের সংকটে জর্জরিত হচ্ছে, এবং চরম দারিদ্রতায় ভোগছেন। এই পরিস্থিতিতেই এখন নারী দিবস পালন করতে হচ্ছে। আজকের এই দিনে আমরা দুনিয়ার সকল মেহেনতী নারীদেরকে জানাই আমাদের লাল সালাম ও শুভেচ্ছা। আমারা সালাম জানাই কৃষকদেরকে। আমারা সালাম জানাই সকল মজুরদেরকে। আমারা সালাম জানাই সকল ভাই বোন ও কন্যা কমরেডদের প্রতি যারা সমাজের বৈপ্লবিক পরিবর্তনের জন্য লড়াই করছেন। যারা একটি সুন্দর দুনিয়া গড়ার জন্য কাজ করছেন।

সাম্রাজ্যবাদ আমাদের বহু কিছু চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে, এমন কি আমাদের ভবিষ্যৎ ও ডাকাতি করছে। সাম্রাজ্যবাদিরা হলো রক্ত চোষা বাদুরের মত। তারা আমাদেরকে স্বাধীনতা, প্রগতি, কোন সুযোগ, বা সম্মান দিতে চায় না । ওরা আমাদেরকে দাসের মত খাটিয়ে মারতে চায়। আমাদের সময় দিন মাস বছর কেড়ে নিতে চায় । তারা আমাদের জীবনকে সংক্ষিপ্ত করে দিতে বদ্ব পরিকর। তারা আমাদের শিশুদের জীবন চুরি করে নিতে চায়। আমারা বাড়ি বানাই, রাস্তা বানাই, সমাজ গড়ি কিন্তু আমাদের কিছুই নেই। সেই ক্ষেত্রে একটি ই সমাধানঃ তা হলো আলোকিত সাম্যবাদ। তা আমাদের সামনেই গঠতে যাচ্ছে। যাদের চোখ আছে তারা দেখছেন। যাদের কান আছে তারা শোনছেন। আপনি ও আপনার চিন্তা শক্তি কে ব্য

বহার করুন। পুরাতন দুনিয়া ক্ষয়ে যাচ্ছে। সমস্যার পর সমস্যা আঘাত হানছে। প্রচলিত সমাজ ব্যবস্থায় ফাটল তৈরী হয়েছে। আমরা সারা দুনিয়ার মানুষকে নিয়ে গন আন্দোলনের সূত্র পাত করছি। নিপীড়িত মানুষ আজ জেগে উঠছে। তারা প্রশ্ন করতে শিখেছে। সাম্রাজ্যবাদের কলিজা তারা ছিড়ে ফেলবে। এটা তো সত্যি পুরাতন ব্যবস্থা না ভাঙলে নতুন ব্যবস্থা গড়ে তুলা যায় না । ইহা আলোকিত মানুষের নীতি। দুনিয়ার চলমান ব্যবস্থার অবসান ঘটীয়ে আমরা নতুন ব্যবস্থার সূচনা করতে চাই। নতুন দুনিয়ায় আমরা আবার নতুন ভাবে জন্ম নিতে চাই। নতুন সূর্য্য উঠাতে চাই। শান্তি, ন্যায় বিচার, সূখ, সমতা, মর্যাদা, সৃজনশীলতা, স্বাধীনতা ও মেধার বিকাশের পরিবেশ আমরা কায়েম করতে চাই। আলোকিত সাম্যবাদ আগামীদিনের জন্য বিপ্লবের মন্ত্র হিসাবে কাজ করবে। ইহা নারী ভবিষ্যৎ, শিশুর আগামী, সর্বহারার ভবিষ্যৎ। আমরা আমাদের প্রতি আনুগত্য প্রাকাশ করছি। আমরা লড়াকু, আমরা নারী ,আমরা ই আমাদের ভাগ্য গড়ব। আমারা আমাদের বাঁচার লড়াইয়ে বিজয়ী হব। তৃতীয় বিশ্বের নারীদের বিপ্লব দির্ঘজীবি হোক! সর্বহারার বিপ্লব দির্ঘজিবি হোক ! আলোকিত মানুষের মুক্তির অভিযান সফল হোক ! একে এম শিহাব।

Advertisements