কিউবা বিপ্লবের নেতা, ফিদেল ক্যাস্ট্রো, আর নেই।

কিউবা বিপ্লবের নেতা, ফিদেল ক্যাস্ট্রো, আর নেই।fidel-castro-obituary-slide-p9cb-superjumbo-v6-744x1024

“ শুক্রবার, ২৫ শে নভেম্ভর,২০১৬ ইং স্থানীয় সময় সকল ৭ ঘটিকার সময় কিউবার সাবেক প্রেসিডেন্ট ও মহান নেতা ফিদেল ক্যাস্ট্রো ৯০ বছর বয়সে মৃত্যুবরন করেছেন। তিনি ১৯৫৯ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত কিউবার নেতৃত্ব দিয়ে গেছেন। তিনি সেই সময়ে শারিরিক অসুস্থ্যতাজনিত কারনে স্বীয় পদ ত্যাগ করেন। ১৯২৬ সালের ১৩ই আগস্ট তাঁর জন্ম, তিনি অল্প বয়সেই কিউবাকে একটি নয় উপনিবেশিক দেশ হিসাবে দেখতে পান। তিনি তখন মাফিয়া চক্রের দৌড়াত্ব ও মার্কিনীদের মুড়লীপনা দেখতে পান। তৎকালীন বাতিস্তা সরকারের বিরুদ্বে কয়েকটি সংগ্রাম ব্যার্থ হবার পর মাত্র কয়েকজন নিবেদিত প্রান কমরেড সাথে নিয়ে তিনি গেরিলা আন্দোলন শুরু করেন। ১৯৫৯ সালে দেশ প্রেমিক গেরিলা বাহিনী কিউবার ক্ষমতায় আসীন হন। তিনি তাঁর শাসনাধীন কালে বেশ কিছু কঠিন সময় অতিক্রম করেছেন। এর মধ্যে “কউবার মিসাইল সংকট” এবং ১৯৯০ সালে সোভিয়েত পতনের পর প্রচন্ড “সাম্রাজ্যবাদি চাপ”।

আমরা কিউবাকে চিনির আবরনে, বা বিশেষ ধরনের চশমা দিয়ে দেখছি না । ইহা হয়ত আরো অনেক সমাজতান্ত্রিক দেশের মতই নানা পরিক্ষা নিরিক্ষার ভেতর দিয়ে গেছে। কিউবা কিন্তু এখন আর সমাজতান্ত্রিক দেশ নয়। সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব কিউবার দির্ঘ কালের স্থবিরতাকে কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করেছে, “আন্তর্জাতিক সমাজতান্ত্রিক শ্রম বিভাজন” প্রক্রিয়া যক্ত হয়। তা সোভিয়েত নেতা নিকিতা ক্রোসচেভের সময় কাল পর্যন্ত অভ্যাহত ছিলো। ঠান্ডা যুদ্বের সময়, দুনিয়ার বহু জাতিয়তাবাদি ও জাতিয় মুক্তিবাদি আন্দোলন নিজেদের গায়ে “কমিউনিস্ট” লেভেল ব্যবহার করেছে- সোভিয়েত ব্লকে থাকার জন্য। একটা প্রশ্ন তো থেকেই যায় যে, কউবা আদতে সোভিয়েত সহায়তায় একটি সমাজতান্ত্রিক দেশ হতে চেয়েছিলো না কি কেবল সামাজিক গণতান্ত্রিক সরকার গঠন করতে চেয়েছিলো? যখন চে গুয়েভারা মাওবাদি ধারায় দেশের উন্নয়ন করে আইনগত মূল্যবোধের পরিবর্তন চাইছিলেন তখন ক্যাস্ট্রো সোভিয়েত ইউনিউনের রূপান্তর ধর্মী উন্নয়ন মডেল গ্রহনে জোর দেন। ১৯৯০ সালে সোভিয়েত সাহায্য বন্দ্ব হবার পর ক্যাস্ট্রো শক্ত হাতে পরিস্থিতি মোকাবেলা করেন। তাঁর সেই সময় কালকে কিউবার জনগণ “বিশেষ সময়” বলে অবিহিত করে থাকেন।

সামগ্রীক ভাবে কিউবার রাষ্ট্রীয় চরিত্র হলো, ক্যাস্ত্রো কিউবাকে সকল সময়েই স্বাধীন অবস্থায় রেখেছেন, যদি ও মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ ও তাদের নৌবাহিনী দেশটিকে সকল সময়েই ঘিরে রেখেছে, এবং সি আই এ ক্যাস্ত্রোকে হত্যার পরিকল্পনা করেছে বার বার । কিউবার নেতা হিসাবে তাঁর দায়িত্ব পালন করা তখন খুব সহজ ছিলো না । বিশেষ সোভিয়েত পতনের পর তা আরো কঠিন হয়ে পরে। তিনি তখন ও কিউবাকে সাম্রাজ্যবাদ বিরুধী, আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে তৃতীয় বিশ্বের দূর্বল জাতি সমূহের পক্ষে দাড় করান। তাকে সামগ্রীক বিবেচনায় এক জন কমিউনিস্ট বলা না হলে ও এটা স্বীকার করতেই হবে যে তিনি সাহসী, নীতিবাদি, নিপীড়িত মানুষের বন্দ্বু, বিশেষ করে এশিয়া ও আফ্রিকার জনগণের জন্য তিনি অনেক অবদান রেখে গেছেন।
আমরা আশা করি কিউবার জনগন সত্য, ন্যায় ও সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্বে ফিদেল ক্যাস্ট্রোর পথ ধরে আরো এগিয়ে যাবেন। আলোকিত সাম্যবাদিগন ফিদেল ক্যাস্ট্রোকে জানায়- লাল সালাম ! এবং কিউবার জনগনের সাথে শোক প্রকাশে ও তাঁর উত্তরাধিকার ধারনে একাত্মতা ঘোষনা করছে। এড, শিহাব।

Advertisements